শেষ সময়েও রোনালদো নতুনের মত

0
9

বয়স হয়েছে ৩৫। যে বয়সে সাধারণত ফুটবলাররা বুট জোড়া তুলে রাখেন সেই বয়সে এসে ২৮ বছরের তরুণের মতো মাঠে ছুটে চলেছেন টগবগিয়ে, গোল করছেন মেশিনের মতো। তিনি ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদো। জাতীয় দল কিংবা ক্লাব! সমানভাবে টেনে চলছেন তার দলকে। গোল করে জিতিয়ে যাচ্ছেন অনবরত। এ যেনো এক গোল মেশিন। শেষ বয়সে এসেও ছুটে চলছেন দুর্দান্ত গতিতে।

যে কোনো খেলোয়াড় নিজের দেশের হয়ে ৪০ গোল করতে পারলে তারকাই হয়ে যাবেন। কিন্তু ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদো তো আর সাধারণ তারকা নন! তিনি অনন্য! সব মিলিয়ে দেশের হয়ে ৪০ গোল নয়, রোনালদো গোল করেছেন ৪০ আলাদা আলাদা দেশের বিপক্ষে। যার সর্বশেষ সংযোজন লিথুয়ানিয়া। এর মাধ্যমে ৪০ দেশের বিপক্ষে ন্যূনতম একটি করে গোল করা হয়ে গেল তাঁর। শুধু একটা নয়, লিথুয়ানিয়ার বিপক্ষে তিনি গোল করেছেন চার-চারটি। ভাবা যায়!

আগের ম্যাচে সার্বিয়ার বিপক্ষে জেতানোর পর এবার লিথুনিয়ার মাঠেও জ্বলে উঠলেন সিআর সেভেন। একে একে করলেন চারটি গোল। শেষের দিকে জালের দেখা পেয়েছেন উইলিয়াম কারভালহো। তাতে লিথুয়ানিয়াকে হেসেখেলে হারিয়েছে পর্তুগাল।

মঙ্গলবার (১০ সেপ্টেম্বর) ইউরো চ্যাম্পিয়নশিপ বাছাইয়ের ‘বি’ গ্রপের ম্যাচে লিথুয়ানিয়ার বিপক্ষে ৫-১ গোলে জিতেছে পর্তুগাল। চার ম্যাচে টানা দুই জয় ও দুই ড্রয়ে চলতি বাছাই পর্বে জয়ের ধারা ধরে রেখেছে গতবারের চ্যাম্পিয়নরা।

ম্যাচের সপ্তম মিনিটে দলকে এগিয়ে নেন রোনালদো। ডি-বক্সে পেনাল্টি পেলে সেটা মিস না করে লক্ষ্যভেদ করেন জুভেন্টাস ফরোয়ার্ড। তবে বেশিক্ষণ লিড ধরে রাখতে পারেনি দলটি। ২৮তম মিনিটে জালের দেখা পেয়ে যায় প্রতিপক্ষ। এরপর প্রথমার্ধে আর কোনো গোল হয়নি।

দ্বিতীয়ার্ধের মিনিট দশেক পর শুরু হয় রোনালদো শো। প্রথমে ৬১তম মিনিটে দলকে আবারও এগিয়ে নেন সিআর সেভেন। এরপর চার মিনিট বাদে নিজের হ্যাটট্রিক পূরণ করেন তিনি। বের্নার্দোর ক্রসেই গোলমুখ থেকে জালে পাঠিয়ে পর্তুগালের হয়ে অষ্টম হ্যাটট্রিক পূরণ করেন পাঁচবারের ফিফা বর্ষসেরা ফুটবলার।

৭৬তম মিনিটে আবারো রোনালদোর পায়ে গোল। এবারও বের্নার্দোর ক্রস থেকেই কোনোকুনি শটে জাল খুঁজে নেন তিনি। যেটা ছিল জাতীয় দলের জার্সিতে তাঁর ৯৩তম গোল। রোনালদোর চার গোলের পর শেষের দিকে আরেকবার গোল করে দলের বড় জয় নিশ্চিত করেন কারভালহো।

পয়েন্ট টেবিলে ৮ পয়েন্ট নিয়ে দ্বিতীয় স্থানে আছে ইউরোর শিরোপাধারী পর্তুগাল। পাঁচ ম্যাচে ১৩ পয়েন্ট নিয়ে শীর্ষে ইউক্রেন। তিনে থাকা সার্বিয়ার পয়েন্ট সাত।

মন্ত্যব্য সমূহ