প্রখ্যাত কৃষকনেতা মজিদ মাস্টার ৩১ তম মৃত্যুবার্ষিকী পালিত

0
1

শেখ মাহতাব হোসেন ডুমুরিয়া খুলনা ::

ডুমুরিয়া সদর ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান দক্ষিণ বাংলার প্রখ্যাত কৃষক নেতা আজীবন সংগ্রামী মজিদ মাষ্টারের আজ ৩১ তম মৃত্যুবার্ষিকী। মজিদ সাহেব ১৯৩৯ সালের ১৬ জানুয়ারি খুলনা জেলার ডুমুরিয়া উপজেলার খলশী গ্রামের ঐতিহ্যবাহী শেখ পরিবারে জন্ম গ্রহণ করেন। ১৯৬২ সালে বিএল কলেজ থেকে বিএ পাশ করেন। কর্মজীবনে তিনি রঘুনাথপুর হাই স্কুলের প্রধান শিক্ষক ছিলেন।

তিনি পুর্ব পাকিস্তান কমিউনিস্ট পার্টির খুলনা জেলা সম্পাদক ছিলেন। পরবর্তীতে জাতীয় কৃষক সমিতির কেন্দ্রীয় কমিটির সহ সভাপতি ছিলেন।তিনি ১৯৭৬ থেকে ১৯৮৮ সাল পর্যন্ত ডুমুরিয়া সদর ইউনিয়ন ও ১৯৮৪ সাল পর্যন্ত ডুমুরিয়া থানা উন্নয়ন কমিটির চেয়ারম্যান ছিলেন।

কৃষক আন্দোলনে নেতৃত্বদান এবং স্বাধীনতা যুদ্ধ চলাকালীন পাকবাহিনী, স্থানীয় রাজাকার, শান্তি বাহিনী, লুটেরা, জোতদার কর্তৃক খুন, নির্যাতন ও লুটপাটের ফলে দিশেহারা মানুষ । বিশেষ করে হিন্দু সম্প্রদায়ের উপর নির্মম অত্যাচারের বিরুদ্ধে তিনি ও তাঁর সহযোগীরা শক্ত প্রতিরোধ গড়ে তুলে খুলনার দক্ষিণাঞ্চলের মানুষের কাছে জীবন্ত কিংবদন্তি হয়ে উঠেছিলেন।

স্বাধীনতা যুদ্ধের সময় এবং পরবর্তীকালে খুলনা জেলার বিভিন্ন অঞ্চলের সাধারণ মানুষের পাশে থেকে বিশেষ করে।কৃষক, শ্রমিক ও গরীব অসহায় মানুষের স্বার্থ রক্ষায় তিনি সারাজীবন আন্দোলন সংগ্রাম করেছেন।তিনি জাতীয় পর্যায়ে নেতাদের কাছে মজিদ মাষ্টার এবং স্হানীয় মানুষের কাছে মজিদ সাহেব নামে পরিচিত ছিলেন।

স্বাধীনতা যুদ্ধ চলাকালীন এবং স্বাধীনতা পরবর্তী আশির দশক পর্যন্ত সড়ক যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন ডুমুরিয়া থানার পরিচিতি অনেকটা যার নামের সাথে জড়িয়ে গিয়েছিল সে ছিলো লাল ডুমুরিয়ার মজিদ সাহেব। ১৯৮৯ সালে ২ রা জুন এই দিনে খুলনা জেলার প্রখ্যাত এই কৃষক নেতা ১৯৮৯ সালের আজকের এই দিনে তিনি  ডুমুরিয়াস্থখলশী গ্রামের নিজ বাসার সামনে আততায়ীর নির্মম বুলেটাঘাতে দুর্বৃত্তদের গুলিতে নিহত হন।

আজীবন সংগ্রামী এ নেতা সবসময় অন্যায়ের বিরোধিতা করেছেন। দরিদ্র সাধারণ মানুষের ভাগ্য উন্নয়নের জন্য কাজ করেছেন।
শহীদ কৃষক নেতা শেখ আব্দুল মজিদ সাহেবের ৩১তম মৃত্যু বার্ষিকীতে বিনম্র শ্রদ্ধা এবং তাঁর আত্মার মাগফেরাত কামনা করে দোয়া করা হয়।

 

মন্ত্যব্য সমূহ